Monday, 22 Apr 2024 | English

হোমিওপ্যাথিক ঔষধ খাওয়ার ও সংরক্ষনের নিয়মাবলী

হোমিওপ্যাথিক ঔষধ খাওয়ার ও সংরক্ষনের নিয়মাবলী

আজকে আমরা হোমিওপ্যাথিক ঔষধ খাওয়ার ও রাখার নিয়ম কানুন সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব।


 

হোমিওপ্যাথিক ঔষধ খাওয়ার নিয়মাবলী

হোমিওপ্যাথিক ঔষধ খাবার আগে ও পরে

  • হোমিওপ্যাথিক ঔষধ খাওয়ার অন্যতম গুরুত্বপূর্ন নিয়ম হল, হোমিওপ্যাথিক ঔষধ খাবার আগে ও পরে 10-20 মিনিটের মধ্যে সকল প্রকার খাবার গ্রহন থেকে বিরত থাকুন। কারন এর ফলে ঔষধের কার্যকারীতা কমে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তবে পানি পান করতে পারেন। 
  • হোমিওপ্যাথিক ঔষধ খাওয়ার সময় কাঁচা পেঁয়াজ, রসুন, আদা এবং অন্যান্য গন্ধযুক্ত পদার্থ এড়িয়ে চলা উচিত । একান্তই প্রয়োজন হলে আপনার হোমিওপ্যাথিক ডাক্তারকে জানান। কারন অনেক হোমিওপ্যাথিক ঔষধ পেঁয়াজ, রসুন, আদা এবং অন্যান্য গন্ধযুক্ত পদার্থের কারনে কার্যক্ষমতা হারায় বা প্রভাব বিস্তারের ব্যর্থ হয়।
  • হাফ এন আওয়ার রুল - হোমিওপ্যাথিক ঔষধ খাবার আগে ও পরে 30 মিনিট সকল প্রকার খাবার গ্রহন থেকে বিরত থাকা। যেমন সকাল ৯ টায় ঔষধ খেলে ৮.৩০ থেকে ৯ টার আগ পর্যন্ত কিছু খাবেন না এবং খাবার পরে ৯.৩০ পর্যন্ত খাবার থেকে বিরত থাকুন । তবে পানি পান করতে পারেন। 

যদি আপনি আধ ঘন্টা নিয়ম অনুসরণ করেন তাহলে আপনি হোমিওপ্যাথিক ঔষধের সাথে কাঁচা পেঁয়াজ, রসুন, আদা এবং অন্যান্য শক্ত গন্ধযুক্ত উপাদান খেতে পারবেন। তবে আধা ঘন্টা আগে বা পরে।

  • হোমিওপ্যাথিক ঔষধ খাবার আগে ভালো করে কুলকুচি (কুলি) করে মুখের ভিতর পরিষ্কার করা নেওয়া সর্বোত্তম।

হোমিওপ্যাথিক ঔষধ খাওয়ার ও সংরক্ষনের নিয়মাবলী

Source: Healthline.com

হোমিওপ্যাথিক ঔষধ খাওয়ার সময়

  • সরাসরি হাতে নিবেন না - হোমিওপ্যাথিকের তরল ঔষধ খাওয়ার নিয়ম হল, তরল হোমিওপ্যাথিক ঔষধ সরাসরি হাতে নিবেন না, এতে করে ঔষধে থাকা স্প্রিট বাতাসে উবে যায় ও ঔষধের কার্যকারিতা কমে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে।
  • ঔষধের বোতলে ঢাকনা বা ছিপিতে নিয়ে অথবা ড্রপ দিয়ে সেবন করুন ও ঔষধ খাবার শেষে দ্রুত ঢাকনা বা ছিপি বন্ধ করুন। এছাড়াও ট্যাবলেট ঔষধ হাতে না নিয়ে ঢাকনা বা ছিপিতে রেখে খাওয়ার চেষ্টা করুন ।

হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা চলাকালীন সময়

হোমিওপ্যাথিক ঔষধ খাওয়ার ও সংরক্ষনের নিয়মাবলী

Source: scientificamerican.com

  • নেশা জাতীয় বা নেশা দ্রব্য এড়িয়ে চলুন - হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা চলাকালীন সময় কোনও প্রকার নেশা করা যাবে না। সিগারেট বা মদের মতো নেশাকর দ্রব্যে যে তীব্র সাপ্লিমেন্ট থাকে, তা হোমিওপ্যাথিক ঔষধের কার্যকারিতাকে কম করে দেয়। ধুমপান, তামাক জাতীয় দ্রব্য এড়িলে চলুন। পান জর্দা থেকেও এড়িয়ে চলার চেষ্টা করুন।
  • চা এবং কফিকে এড়িয়ে চলুন - হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা চলাকালীন সময় চা এবং কফিকে যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলুন। এ জাতীয় খাদ্যের কারণে হোমিওপ্যাথিক ঔষধের কিছু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হতে পারে বা ঔষধ সম্পূর্ণরূপে কার্যকর নাও হতে পারে।
  • টক জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলুন - হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা চলাকালীন সময় তেঁতুল এবং টক জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলুন। হোমিওপ্যাথিক ঔষধ খাওয়ার পরে টক খাবার খাওয়ার ফলে ঔষধের কার্যকারীতা/প্রভাব খর্ব হয়ে যায়। টক জাতীয় খাবার খাওয়ার কারণে হোমিওপ্যাথিক ঔষধের কিছু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হতে পারে বা ঔষধ সম্পূর্ণরূপে কার্যকর নাও হতে পারে।
  • অন্য কোনও রোগীর ঔষধ খাবেন না - কোনও ভাবেই অন্য কোনও রোগীর ঔষধ নিজে খাবেন না। একই রকমের রোগ হলেও অন্য রোগীর ঔষধ খাওয়া কখনওই উচিত নয়। কারণ , হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা ব্যবস্থা রোগীর রোগের লক্ষনের উপর ভিত্তি করে কাজ করে। রোগীভেদে , রোগীর রোগের লক্ষনভেদে হোমিওপ্যাথি ঔষধও বদলে যায়।
  • অন্যান্য ঔষধের সাথে - হোমিওপ্যাথি ঔষধগুলি কখনও অ্যালোপ্যাথি এবং আয়ুর্বেদিক ঔষধ গুলির সাথে একত্রিত করা উচিত নয়। এতে হোমিওপ্যাথিক ঔষধের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া না হলেও ঔষধের কার্যকারীতা বা প্রভাব নষ্ট হতে পারে, ঔষধ নাও কাজ করতে পারেন ।

আপনি যদি হৃদরোগে, উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস বা মৃগী ইত্যাদি রোগে ভোগে থাকেন, তবে কোনও ঔষধ ছাড়ার বা একসাথে খাওয়ার আগে আপনার ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন।

  • অ্যালোপ্যাথিক: আপনি যদি রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, মৃগী রোগী হন এবং আপনি যদি দীর্ঘ সময় ধরে কিছু নির্দিষ্ট ঔষধ সেবন করে থাকেন এবং নিয়মিত খাওয়া বন্ধ করলে সমস্যা হয় বা হতে পারে তবে হঠাৎ করে ঐ ঔষধগুলি বন্ধ করার পরামর্শ দিবে না। তবে আপনি একবার হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসায় ইতিবাচক ফলাফল পেতে শুরু করলে আপনার হোমিওপ্যাথ আপনার ঐ ঔষধগুলি কম ব্যবহারের পরামর্শ দিবে।
  • আয়ুর্বেদিক: বেশিরভাগ আয়ুর্বেদিক ঔষধ এবং হোমিওপ্যাথিক ঔষধের একই উৎস একই কেবলমাত্র প্রস্তুতি ভিন্ন। এজন্য আপনার চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ গ্রহন করা ভালো। যদি ঔষধগুলির একে অপরের বিরূপ পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থাকে তবে আপনার হোমিওপ্যাথ আপনাকে আয়ুর্বেদিক ঔষধ বন্ধ করার পরামর্শ দিবে।

 

হোমিওপ্যাথিক ঔষধ রাখা বা সংরক্ষন করার নিয়ম

হোমিওপ্যাথিক ঔষধ খাওয়ার ও সংরক্ষনের নিয়মাবলী

Source: © Tatjana Splichal/Shutterstock

  • রোদ থেকে দূরে রাখুন

    • হোমিওপ্যাথিক ঔষধ যেখানে বা যেস্থানে সংরক্ষণ করবেন বা আপনার বাসা বাড়িতে যেখানে ঔষধ রাখবেন সে স্থানটিতে যেনো কোনভাবে সরাসরি রোদের আলো না লাগে, কারন সরাসরি রোদের আলোতে ঔষধের গুনাগুন নষ্ট হয়ে যায়। ঔষধ ঠান্ডা স্থানে রাখুন।
  • ঢেকে রাখুন

    • আপনার হোমিওপ্যাথিক ঔষধের ঢাকনা বা ছিপি সবসময় ঢেকে রাখুন। কারন ঔষধের ছিপি বা ঢাকনা খোলা অবস্থায় থাকে, বন্ধ করে না রাখা হয় তাহলে ঔষধ এর মধ্যে থাকা স্প্রিট বাতাসের সাথে উড়ে যাবে এবং এতে হোমিওপ্যাথিক ঔষধের কার্যকারিতা একটু কম হয় বলে মনে করা হয়। অপেক্ষাকৃত অন্ধকার ও ঠান্ডা জায়গায় হোমিওপ্যাথিক ঔষধ ঢেকে রাখুন।

ডাঃ মোঃ আঃ হান্নান মিয়া (বি,এ)

ডি.এইচ.এম.এস (ঢাকা)


অহনা ভিলা, ধানুয়া কলেজ পাড়া, শিবপুর, নরসিংদী

রোগী দেখার সময়ঃ শুক্রবার বিকাল ৫টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত।


বাগদী প্রাইমারী স্কুলের পূর্ব পার্শ্বে, আব্দুল বাতেনের বাড়ি, কালিগঞ্জ, গাজীপুর

রোগী দেখার সময় বিকাল ৩টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত।

মোবাইলঃ ০১৭৩৯-৬৮২৬৯২, অথবা বার্তা পাঠান

(প্রতি শনিবার যোগাযোগ সাপেক্ষে রোগী দেখা হয়)

Share this post
More
Dr. Abdul Hannan Mia
প্রতিকারের চেয়ে প্রতিরোধ ভালো।
Recommended for you
Comments
A
ashikur rahman
2022-02-23 08:32:35
আপয়ানার লেখাগুলো পড়ে খুব ভালো লাগলো। খুব গুছিয়ে লিখেছেন।
একটি প্রশ্ন ছিলো--- আমি দীর্ঘ দিন বাত রোগের জন্য অ্যালোপ্যাথিক ওষুধ খাই এখন আমি কিছু রোগ যেমন ডায়বেটিস, এলার্জি, গ্যাসের সমস্যা বা বাত রোগের জন্যও যদি ওষুধ খেতে চাই তাহলে কি পরামর্শ দিবেন??
বিঃদ্রঃ আমি বাত রোগের জন্য হুট করে অ্যালোপ্যাথিক ওষুধ ছেড়ে দিতে পারছি নাহ কারন খুব সমস্যায় থাকি, আমি আসতে আসতে অ্যালোপ্যাথিক থেকে সরে আসতে চাই।সেক্ষেত্রে কি আমি অ্যালোপ্যাথিক হোমিও ওষুধ এর মাঝে ১ বা দেড় ঘণ্টা গ্যাপ রেখে খেতে পারি?
Dr. Abdul Hannan Mia
Dr. Abdul Hannan Mia Creator Administration
2022-02-27 13:50:49
মনোযোগ সহকারে লেখাটি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।
প্রশ্নঃ অ্যালোপ্যাথিক ঔষধ খাওয়ার আধা ঘন্টা বা (১-১.৫ ঘন্টা) পরে ঔষধ সেবন করতে পারব কি না?
উত্তরঃ অ্যালোপ্যাথিক ঔষধ খাওয়ার আধা ঘন্টা বা (১-১.৫ ঘন্টা) পরে আপনি হোমিও ঔষধ সেবন করতে পারবেন।