Monday, 22 Apr 2024 | English

উচ্চ রক্তচাপ বা হাই ব্লাড প্রেসারের হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা ও ঔষধ

উচ্চ রক্তচাপ বা হাই ব্লাড প্রেসারের হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা ও ঔষধ

আজকে আমরা উচ্চ রক্তচাপ বা হাই ব্লাড প্রেসারের, হাই প্রেসার কমানোর ও নিয়ন্ত্রনের হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা ও ঔষধ সর্ম্পকে জানব।

 


যে সকল মানুষজন উচ্চ রক্তচাপ বা হাই ব্লাড প্রেসারে ভুগছেন তারা নিয়মিত প্রতিদিন ২ কোয়া করে রসুন খান, ১০০% আরাম পাবেন। দয়া করে দেখুন, রসুন ন্যাচারাল এন্টি বায়োটিক।

উচ্চ রক্তচাপ বা হাই ব্লাড প্রেসারের হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা ও ঔষধ

  1. একোনাইট ন্যাপ ৩০ (Aconite Nap) খাবারের আগে। একোনাইটের রোগী রোগের ঘোরে প্রলাপ বকে, মৃত্যুর দিন তারিখ বলে দেয়।
  2. বেলেডোনা (Belladona) মাথা ব্যথা চোখ মুখ লাল ক্যারােটি ও ধমনীর দপদপানি, হঠাৎ রক্ত চাপ বেড়ে যাওয়ার ফলে অজ্ঞান হয়ে পড়া, অত্যাধিক রােদের তাপ, কাজের টেনশন, হঠাৎ উত্তোজনায়, রক্ত চাপের বৃদ্ধি। চিলিক মারা ব্যাথা, ব্যাথা হঠাৎ আসে হঠাৎ যায়, চোখ মুখ লাল হয় যায়, ব্যাথার স্থান গরম, লাল, জ্বালা ও স্পর্শকাতর (এই চারটি লক্ষনে বেলেডোনা প্রয়োগ সর্বোউত্তম) । সামান্য শব্দে ভয় পায় শুয়ে থাকতে পারে, না। - বেলেডোনা ৩০ (Belladona) খাবারের পরে। চান্স - ১০০% (বেলেডোনা ও একোনাইট ন্যাপ পর্যাক্রমে /  একটার পর আরেকটা)
  3. রাউল ফিয়া (Rauwalfia Serp): Rauwalfia Serp উচ্চ রক্তচাপ রোগের একটি উৎকৃষ্ট হোমিও ঔষধ। মাথা ব্যথা, মাথা ঘােরা, অনিদ্রা কৃত ভা ভো করা শরীর ম্যাজ ম্যাজ করা মন অস্থির হওয়া লক্ষনে রাউল ফিয়া অতি উৎকৃষ্ট ঔষধ। রাউল ফিয়া Q ১০/১৫ ফোটা পানিতে মিশিয়ে দিনে দুইবার।সেবনে রক্ত চাপ স্বাভাবিক থাকিয়া গভির নিদ্রা হয়। চান্স - ১০০%

  4. ক্র্যাটেগাস (Crataegus Ox)  এ হৃদপিণ্ডের ক্রিয়া বর্ধিত হয়। বুক ধড়ফড়ানি কম হয়।

  5. গ্লোনয়িন (Glonoine): উচ্চ রক্ত চাপ জনিত মাথায় ভয়ানক দপদপানি ব্যাথা,মাথা ব্যাথায় রোগী অস্থির হইয়া পরে, রােগী অত্যন্ত উত্তেজনা পূর্ন ও রােগ প্রধান সামান্য কারনেই মাথা ব্যথা করে। মাথা বড় হওয়ার অনুভূতি, তখন ইহা উপকারে আসে । গ্লোনয়িন (Glonoine) 1x দুই ফোঁটা করে সামান্য জলসহ ঘন ঘন, কয়েক মাত্রা সেবনে উপকার হয়। চান্স - ৯৫% 

  6. ভিসকাম এলব (Viskam Alb): অত্যন্ত বুক ধরফরানি, শ্বাস নিতে কষ্ট,বামদিক শুইতে অক্ষমতা, বুক অত্যন্ত ভারিবোধ, কোন এক অবস্থায় অধিক্ষন থাকতে না পারা,মাথা ঘােরা, মাথা ব্যথা, তন্দ্রা, সব সময় রাগ রাগ ভাব, সারা শরীর জ্বালা প্রচন্ড রক্তের উচ্চ চাপ ইত্যাদি লক্ষনে এটি কার্যকরি ঔষধ। ভিসকাম এলব (Viskam Alb) Q ১০ ফোঁটা সামান্য ঠান্ডা পানিসহ দিনে তিন বার। চান্স - ৭৫% 

  7. সমান্য কারনেই মাথা গরম হয়, মাথা বড় মনে হয় ,ঘুমেই রােগের বৃদ্ধি তাই ঘুম কে খুবই ভয় করে। নেশা খাের ,জোর উচ্চ রক্ত চাপ, ঠান্ডা ও স্পর্শ সহ্য হয় না। ল্যাকেসিস (Lachesis), চান্স - ৯৫% 

  8. লাইকোপাস (Lycopus) 30/200 শক্তিতে ব্লাড প্রেসার বৃদ্ধি, হৃদপিণ্ডের ব্যাথা,নাড়ীর দ্রুত স্পন্দন থেকে উপকার পাওয়া যায়।

  9. এম্বা গ্রিসিয়ার্(Ambra Gresea): অতিরিক্ত রক্তচাপ জনিত মাথার তালুতে বেদনা। বুক ধরফরানি, কানে কম শোনা, বুকে চাপবোধ,অনিদ্রা ইত্যাদি লক্ষনে এটি কার্যকর। এম্বা গ্রিসিয়ার্(Ambra Gresea) 6/30 দিনে তিন বার।

  10. ব্লাড প্রেসারের জন্য পড়ে গিয়ে অজ্ঞান হয়ে যায় অসাড়ে পড়ে থাকে, ঘুম ঘুম ভাব, শরীর হাত পক্ষাঘাতের মত অসাড় শির ধমনী ছিন্ন হেতু অজ্ঞান হয়ে যাওয়া।  আর্নিকা মন্ট (Arnica Mont)। চান্স - ৮৫% 

  11. অরাম মেট (Aurum Metallicum): রক্ত মস্তিষ্কে ধাবিত হয়, সমস্ত রক্ত ​​মাথা থেকে নিচ পর্যন্ত ছুটে আসে বলে মনে হয়, ফলে মাথা ব্যথা, রাতে বৃদ্ধি, মনে হয় কপাল ছিড়ে যাবে, মাথা নীচু করলে বা চললে মাথা ঘুরে, দুই ভ্রুর মধ্যে, নাসিকামূলে দপ দপ করে, আধ কপালে মাথা ব্যথা, হৎপিন্ডে চর্বি জমে, পরিশ্রম করলে বুক ধরফর করে, মনে হয় হৃদপিন্ডের কম্পন ২-৩ মিনিটের জন্য থেমে গেল কিন্তু পরক্ষণেই প্রবলভাবে লাফিয়ে উঠে, নাড়ী দ্রুত গতিশীল, ক্ষণ, অনীয়মিত স্পন্দন বিশিষ্ট্য ও চলতে কষ্ট। 

  12. সেফালান্ডা ইন্ডিকা(Cephalandra Indica): ডায়াবেটিস রোগিদের উচ্চ রক্তচাপে বিশেষ ভাবে ব্যবহৃত হয়। মাথা ব্যাথা / ধরা,মাথা ঘোরা / চক্কর দেওয়া, হাত-পা,চোখ-মুখে আগুনের পোড়ার ন্যায় জ্বালা, প্রবল জল পিপাসা ,জ্বালায় ঠান্ডা জলে উপশম, । এধরনের লক্ষনে সেফালান্ডা ইন্ডিকা (Cephalandra Indica) Q ৩/৪ ফোঁটা ঠান্ডা পানিতে দিনে তিনবার। চান্স - ৯০% 

Glonoinum 1X, ১ ফোঁটা, Crataegus Q – ৫ ফোঁটা, Passiflora Q – ৮/১০ ফোঁটা , উক্ত মাত্রায় এই তিনটি ওষুধ পর্যায়ক্রমে ২/৩ ঘণ্টা অন্তর প্রয়োগ করবেন। অথবা পর্যায় দিনে প্রত্যেকটি ওষুধ তিনবার, অর্থাৎ আজ Glonoinum তিনবার ,কাল Crataegus তিনবার, পরশু Passiflora তিনবার, এইভাবে ওষুধ প্রয়োগ করে ফলাফল পরীক্ষা করবেন।

Source: homoeobangla

উচ্চ রক্তচাপের বাইয়োকেমিক চিকিৎসা

ক্যালি ফস (Kali Phos)নেট্রাম মিউর (Natrum Mur): বাইয়োকেমিক মতে এই ঔষধ দুইটি উচ্চ রক্তচাপে উৎকৃষ্ট ঔষধ।  6X বা 12X ৩-৪ বড়ি এক মাত্রা গরম পানিতে রোগ বৃ্দ্ধির সময় এক বা আধ ঘন্টা পরপর খেলে কমে যায়।

যেসব খাবারে উচ্চ রক্তচাপ কমে

রসুন:- রক্তচাপ নিয়ন্ত্রনে রাখতে রসুনের ভূমিকা ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ। প্রতিদিন এক টুকরাে রসুন কোয়া খেলে আপনার কোলেস্টরল নিয়ন্ত্রনে থাকে। এর ফলে রক্তচাপও স্বাভাবিক থাকে।
গাজর: হাই ব্লাডপ্রেশার কমাতে চাইলে আপনার খাদ্য তালিকায় রাখুন গাজর। গাজরের রস করে খেতে পারেন।আরও ভালাে ফল চাইলে পালং শাকের সঙ্গে গাজরের মিশ্রণ বানিয়ে খেতে পারেন।
পিয়াজ ও মধু:- রূপচর্চার পাশাপাশি রক্তচাপ নিয়ন্ত্রনেরও সমান কার্যকরী পিয়াজ ও মধু। এক চা চামচ পিয়াজের রসের সঙ্গে ২ চা চামচ মধু মেশান। নিয়মিত মিশ্রনটি খান। উপকার পাবেন। ঘরােযা উপায়ে এই পদ্ধতি কাজে লাগাতে পারেন তবে চিকিৎসকের পরামার্শ নিতে ভূলবেন না।

ডাঃ মোঃ আঃ হান্নান মিয়া (বি,এ)

ডি.এইচ.এম.এস (ঢাকা)


অহনা ভিলা, ধানুয়া কলেজ পাড়া, শিবপুর, নরসিংদী

রোগী দেখার সময়ঃ শুক্রবার বিকাল ৫টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত।


বাগদী প্রাইমারী স্কুলের পূর্ব পার্শ্বে, আব্দুল বাতেনের বাড়ি, কালিগঞ্জ, গাজীপুর

রোগী দেখার সময় বিকাল ৩টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত।

মোবাইলঃ ০১৭৩৯-৬৮২৬৯২, অথবা বার্তা পাঠান

(প্রতি শনিবার যোগাযোগ সাপেক্ষে রোগী দেখা হয়)

Share this post
More
Dr. Abdul Hannan Mia
প্রতিকারের চেয়ে প্রতিরোধ ভালো।
Recommended for you
Comments